অপরূপ সৌন্দর্যের পাথরভূমি বিছানাকান্দি ঘুরে আসুন

সিলেট শহর থেকে বেশখানিক পথ দূরে বিছনাকান্দি অবস্থিত। সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত জলপাথড়ের ভূমি এই বিছনাকান্দি। যা প্রকৃতির আপন লীলাখেলায় মেতে আছে তার অপার সৌন্দর্যে! বিছনাকান্দির সারাভূমি জুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে পাথর আর পাথর। যা দেখে সত্যিই মনে হবে যেন একটি পাথরের বিছানা।

অপরূপ সৌন্দর্যের পাথরভূমি বিছানাকান্দি ঘুরে আসুন
অপরূপ সৌন্দর্যের পাথরভূমি বিছানাকান্দি ঘুরে আসুন

সিলেট শহর থেকে বেশখানিক পথ দূরে বিছনাকান্দি অবস্থিত। সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত জলপাথড়ের ভূমি এই বিছনাকান্দি। যা প্রকৃতির আপন লীলাখেলায় মেতে আছে তার অপার সৌন্দর্যে! বিছনাকান্দির সারাভূমি জুড়ে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে পাথর আর পাথর। যা দেখে সত্যিই মনে হবে যেন একটি পাথরের বিছানা।


এর অপূর্ব সৌন্দর্য সারারাত না ঘুমিয়েই উপভোগ করার মতো। এই সৌন্দর্য দেখে নিমিষেই দূর হয়ে যাবে সকল ক্লান্তি। পৃথিবীর সব শান্তি এখানে খুঁজে পাবেন যখন মেঘালয় রাজ্যের পাহাড় থেকে নেমে আসা ঝর্ণার পানিতে পা ফেলবেন।


বিছনাকান্দির আসল সৌন্দর্য

বিছনাকান্দির আসল সৌন্দর্য শুকনো মৌসুমে চোখে পড়ে না। বর্ষাকালে পানির জলরাশি এই জায়গাটিকে করে তোলে আরও মায়াময়। অসাধারণ এই বিছনাকান্দির সৌন্দর্যে দৃষ্টির শেষ সীমানা পর্যন্ত শুধু পাথর আর পাহাড়।


এখানে আসলে আপনারা দেখতে পাবেন আকাশ আর মেঘের সাথে পাহাড়ের দলগুলোর সন্ধি। পাথর, পানি, পাহাড় আর মেঘ নিয়েই যেন বিছনাকান্দি। এখানে আসলে সর্বপ্রথম যে কথাটি মনে হবে তা হল প্রশান্তি। এই প্রশান্তিটুকুই আপনাকে ভুলিয়ে দেবে প্রতিদিনের শত শত গ্লানি।


প্রকৃতির এই সৌন্দর্যের কাছে যেন সকল অশান্তি দূর হবেই। আর এটি উপলব্ধি করতে হলে অবশ্যই আসতে হবে এই বিছনাকান্দিতে। শুধু বিছনাকান্দিই নয়, সাথে লক্ষনছড়া এবং পান্থুমাই এই তিনটি জায়গা ঘুরিয়ে আনতে ক্ষেত্র বিশেষে প্রায় ১১০০ থেকে ১৫০০ টাকা নৌকার খরচ পরবে।


পান্থুমাই, বিছনাকান্দি ও লক্ষনছড়া এগুলো সব এক রুটে হওয়ার কারনে একদিনেই এক নৌকা দিয়েই দেখা যায়। সেজন্য এক নৌকা ভাড়া করাই এর জন্য ভালো।


যদি বিছানাকান্দি এর সৌন্দর্য উপভোগ করতে চান তবে বর্ষাকালে যেতে হবে এই সকল জায়গাগুলোতে। কারণ বর্ষাকালেই বেশী উপভোগ করা যায় সিলেট নগরীর আসল সৌন্দর্জ্যটা। বর্ষার সময়েই বিছনাকান্দি তার পূর্ণযৌবন ফিরে পায়।


কীভাবে যাবেন?

ঢাকা থেকে সিলেট এর উদ্দেশ্যে অনেক বাসই যায়। বাস গুলো সকাল থেকে রাত ১২.৪৫ পর্যন্ত নির্দিষ্ট সময় পরপর ছেড়ে যায়। ভাড়া লাগবে ৮০০ থেকে ১১০০ টাকা। এছাড়া নন-এসি বাসগুলোতে ভাড়া লাগে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা।


ঢাকা থেকে ট্রেনে সিলেট

এছাড়া ট্রেনেও যাওয়া যায়। এক্ষেত্রে ভাড়া লাগবে ১০০০ টাকা।


আকাশপথে

ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমান প্রতিদিন যায় সিলেটের ওসমানী বিমানবন্দরে। বিমানে ঢাকা থেকে সিলেট এর টিকেট মুল্য পড়বে ৩২০০ থেকে ৬৯০০ টাকা পর্যন্ত।


এরপর সিলেট থেকে বিছনাকান্দি যেতে হলে সর্বপ্রথম আপনাকে নগরীর আম্বরখানা পয়েন্ট যেতে হবে। সাধারনত সেখানে থেকে পাঁচজন মিলে ১০০০ টাকায় ভাড়া নেওয়া যায়। তবে ৮০ থেকে ২০০ টাকা জনপ্রতিও যাওয়া যায়।


কোথায় থাকবেন?

লালা বাজার এলাকায় কম ভাড়ায় আপনি অনেক মানসম্মত রেস্ট হাউস পেতে পারেন৷ ৪০০টাকা থেকে ৫০০০ টাকার মধ্যে বিভিন্ন ধরনের রুম পাবেন। এগুলোতে রাত্রি যাপন করতে পারবেন।


কিছু হোটেলের সম্পর্কে জানুন

শহরের শাহজালাল উপশহরে হোটেল রোজ ভিউ, দরগা গেইটে হোটেল স্টার প্যাসিফিক, ভিআইপি রোডে হোটেল হিলটাউন, বন্দরবাজারে হোটেল মেট্রো ইন্টারন্যাশনাল, নাইওরপুলে হোটেল ফরচুন গার্ডেন ইত্যাদি।


খাবেন কোথায় এই তো?

খাওয়ার জন্য বেশ ভালো তিনটি খাওয়ার হোটেল আছে সিলেটের জিন্দাবাজারে। হোটেল গুলো হচ্ছে পাঁচ ভাই,পানশি ও পালকি। আপনি এখানে বিরিয়ানি থেকে শুরু করে অন্যান্য আরও অনেক খাবার পাবেন।


তবে এখানে আরও কিছু বিশেষ খাবারও পাবেন আপনি। আর তা হল এগুলোতে প্রায় ২৯ প্রকারের ভর্তা পাওয়া যায়। আজ এই পর্যন্তই। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।


আরও পড়ুনঃ নীলগিরি: বান্দরবানের অপরূপ সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি