এলিজাবেথ যুগ (১৫৫৮-১৬০৩), ইংরেজি সাহিত্যে ইতিহাসের স্বর্ণযুগ হিসাবে চিত্রিত

এলিজাবেথ যুগে (১৫৫৮-১৬০৩) ব্যাপকভাবে বই, সিনেমা, নাটক এবং টিভি সিরিজে রোমান্টিকতার সূচনা হয়। এই যুগেই ইংরেজি রেনেসাঁর কবিতা, সঙ্গীত এবং সাহিত্যের ফুল ফোটানো হয়েছে। এই যুগটি থিয়েটারের জন্য সবচেয়ে বিখ্যাত, কারণ উইলিয়াম শেকসপিয়র এবং আরও অনেকে এই যুগেই নাটক রচনা করেছিলেন যা আজও সকলে পড়ে এবং দেখে।

এলিজাবেথ যুগ (১৫৫৮-১৬০৩), ইংরেজি সাহিত্যে ইতিহাসের স্বর্ণযুগ হিসাবে চিত্রিত
এলিজাবেথ যুগ (১৫৫৮-১৬০৩), ইংরেজি সাহিত্যে ইতিহাসে স্বর্ণযুগ হিসাবে চিত্রিত

১৫৫৮ থেকে ১৬০৩ সাল ছিলো ইংল্যান্ডের ইতিহাসের টিউডোর যুগ। এই যুগটি ছিলো রাণী প্রথম এলিজাবেথের শাসনামল। এই যুগটিকে বলা হয় এলিজাবেথান যুগ। ইতিহাসবিদরা প্রায়শই এটিকে ইংরেজির ইতিহাসের স্বর্ণযুগ হিসাবে চিত্রিত করেন।


ব্রিটানিয়ার প্রতীক যা গ্রেট ব্রিটেনের মহিলা রূপ প্রথম ব্যবহৃত হয়েছিল ১৫৭২ সালে। এবং এরপরে প্রায়শই এলিজাবিথান যুগকে নবজাগরণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল যা স্পেসের উপরে ধ্রুপদী আদর্শ, আন্তর্জাতিক সম্প্রসারণ এবং নৌ বিজয়ের মাধ্যমে জাতীয় গর্বকে উদ্বুদ্ধ করেছিল।


এই যুগটিতে ব্যাপকভাবে বই, সিনেমা, নাটক এবং টিভি সিরিজে রোমান্টিকতা হয়েছে। এই যুগেই ইংরেজি রেনেসাঁর কবিতা, সঙ্গীত এবং সাহিত্যের ফুল ফোটানো হয়েছে। এই যুগটি থিয়েটারের জন্য সবচেয়ে বিখ্যাত, কারণ উইলিয়াম শেকসপিয়র এবং আরও অনেকে এই যুগেই নাটক রচনা করেছিলেন যা আজও সকলে পড়ে এবং দেখে।


ইংল্যান্ডের সাম্রাজ্যকে আরও উন্নত করার উদ্দেশ্যে এই যুগটি ছিলো “দ্য নিউ ওয়ার্ল্ড” সহ সারা বিশ্বে ইংরেজ শাসনের অধীনে উপনিবেশ স্থাপনের বিদেশি অনুসন্ধান এবং সম্প্রসারণের একটি বড় প্রক্রিয়া।


অনুসন্ধান এবং প্রসারের একটি যুগ ছিল এটি। স্কটল্যান্ডের সাথে রাজকীয় মিলনের আগে ইংল্যান্ড একটি পৃথক রাজ্য ছিল। এলিজাবেথনের যুগটি পূর্ববর্তী এবং পরবর্তী রাজত্বগুলির সাথে তীব্র বিপরীতে দেখা যায়। এটি ছিল ইংরেজী সংস্কার এবং প্রোটেস্ট্যান্টস এবং ক্যাথলিকদের মধ্যে ধর্মীয় লড়াই। এরপরে সংসদ এবং রাজতন্ত্রের ভিতরে রাজনৈতিক লড়াইয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ শান্তির সংক্ষিপ্ত সময় যা সপ্তদশ শতাব্দীর বাকী অংশকে আবদ্ধ করেছিল।


প্রোটেস্ট্যান্ট/ক্যাথলিক বিভাজনটি এলিজাবেথান ধর্মীয় বন্দোবস্ত দ্বারা কিছু সময়ের জন্য মীমাংসিত হয়েছিল এবং রাজকীয় নিরপেক্ষতাকে চ্যালেঞ্জ জানাতে পার্লামেন্ট এখনও এতটা শক্তিশালী ছিল না। ইউরোপের অন্যান্য জাতির তুলনায় ইংল্যান্ডও বেশ ভাল ছিল।


ইতালীয় রেনেসাঁস ইতালীয় উপদ্বীপের স্পেনীয় আধিপত্যের ভারে শেষ হয়ে গিয়েছিল। ১৫৬২ থেকে ১৫৯৮ সালে ফ্রান্সের কিংডম ফরাসি ধর্মের যুদ্ধের সঙ্গে জড়িত ছিল। ১৫৯৮ সালে তারা অস্থায়ীভাবে ন্যান্টেসের এডিক্টের সাথে প্রোটেস্ট্যান্টিজম সহ্য করার নীতি দ্বারা স্থায়ী হয়েছিল।


যদিও ইংল্যান্ডের বেশিরভাগ প্রভু দ্বারা তার আরোহণ অনুমোদিত হয়েছিল। মূলত প্রোটেস্ট্যান্ট রাণীর অধীনে বৃহত্তর ধর্মীয় সহনশীলতার আশা করেছিলেন যারা প্রোটেস্ট্যান্ট ছিলেন। মেরির ক্যাথলিকপন্থী আইন বাতিল করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্যার উইলিয়াম সিসিলের প্রাথমিক নির্দেশনায় রাণী প্রথম এলিজাবেথ।


ইংল্যান্ডের চার্চ, এবং স্কটল্যান্ডের ক্যালভিনিস্ট সংস্কারকদের উৎসাহিত করেছিল স্থায়ী প্রোটেস্ট্যান্ট প্রতিষ্ঠা করে।


এলিজাবেথ বিদেশী বিষয়ে ইংল্যান্ডের প্রোটেস্ট্যান্ট মিত্রদের শক্তিশালী করার এবং তার শত্রুদের বিভক্ত করার নীতি অনুশীলন করেছিলেন। তিনি পোপের দ্বারা বিরোধিতা করেছিলেন। যিনি তার বৈধতা স্বীকার করতে অস্বীকার করেছিলেন। এবং স্পেনের ক্যাথলিক জাতি ছিলো তার ক্ষমতার শীর্ষে।


১৫৮৮ সালে ইংলিশ-স্প্যানিশ প্রতিদ্বন্দ্বিতা ইংল্যান্ডের একটি স্প্যানিশ আক্রমণের দিকে পরিচালিত করে যেখানে স্প্যানিশ আর্মা, তৎকালীন বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ নৌবাহিনী ধ্বংস হয়েছিল ঝড় এবং একটি নির্ধারিত ইংরেজ নৌবাহিনীর দ্বারা।


এলিজাবেথ সমুদ্রযাত্রার আবিষ্কারকে উৎসাহিত করেছিলেন এই সমুদ্রে ইংরেজদের আধিপত্য বাড়ার সাথে সাথে। যেমন স্যার ফ্রান্সিস ড্রেকের পৃথিবী প্রদক্ষিণ এবং স্যার ওয়াল্টার রালেঘের উত্তর আমেরিকার উপকূলের অভিযান।


এলিজাবেথের দীর্ঘ রাজত্ব ধরে রাখতে তিনি বিয়ের প্রতি অনীহা ছিলেন। এজন্য তিনি “ভার্জিন কুইন” নামে পরিচিত হয়েছিলেন। ১৬০৩ সালে তার মৃত্যুর পরও ইংল্যান্ড প্রতিটি ক্ষেত্রে একটি প্রধান বিশ্ব শক্তি হয়ে উঠেছিল। এবং রানী প্রথম এলিজাবেথ ইংল্যান্ডের অন্যতম সেরা রাজা হিসাবে ইতিহাসে প্রবেশ করেছিলেন।


আজ এই পর্যন্তই। সবাই ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন। ধন্যবাদ।


আরও পড়ুনঃ নির্বাচন নাকি প্রহসন! তারও আগে জানুন প্রহসন বা ফার্স সম্পর্কে