ওয়েবসাইটে সাইটম্যাপ (Sitemap) এর গুরুত্ব সম্পর্কে জানুন

যে কোনো ওয়েবসাইটের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে সাইটম্যাপ। কারণ গুগল এই সাইটম্যাপের দ্বারাই আমাদের ব্লগ অথবা ওয়েবসাইট ইনডেক্স করে থাকে। আপনি এককথায় বলতে পারেন সাইটম্যাপ ছাড়া যেকোনো ব্লগ বা সাইট অচল। আসুন জেনে আসি সাইটম্যাপ কি সেই সম্পর্কে।

ওয়েবসাইটে সাইটম্যাপ (Sitemap) এর গুরুত্ব সম্পর্কে জানুন
ওয়েবসাইটে সাইটম্যাপের(Sitemap) এর গুরুত্ব সম্পর্কে জানুন

সাইটম্যাপ সম্পর্কে অনেকেই হয়তো জানেন আবার অনেকেই এই শব্দটির সাথে পরিচিত নয়। বিশেষ করে যারা ওয়েবসাইট ডিজাইন করে থাকেন বা ওয়েবসাইটের সাথে যারা সম্পৃক্ত তাদের কাছে এ নামটি পরিচিত মনে হতে পারে। শুধু পরিচিতই নয় হয়তো তারা এই সাইটম্যাপ সম্পর্কে অনেক কিছুই জানেন।


তবে এখনো অনেকেই আছেন যারা জানেন না এটা আসলে কি বা এই সাইটম্যাপ এর গুরুত্ব কি। আমাদের আজকের বিষয় সাইটম্যাপ।


সাইটম্যাপ কি?

এই প্রশ্নের খুব সহজ একটি উত্তর হলো সাইটম্যাপ এমন একটি ফাইল যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন একটি ওয়েবসাইটের সম্পূর্ণ বিবরণ পেয়ে থাকে। আরও সহজ ভাষায় বলা যেতে পারে যে, সাইটম্যাপ হলো একটি ওয়েবসাইটের ঠিকানা ঠিক যেমন গুগল ম্যাপ।


গুগল ম্যাপের সাহায্যে আপনারা কি ঠিক বাড়ির ঠিকানাটিই খুঁজে পান? নিশ্চয়ই না। গুগল ম্যাপের সাহায্যে কোনো বাড়ির আসে পাশে যদি কোন স্কুল বা হসপিটাল ইত্যাদি থাকে তবে সেটা খুঁজে বের করা যায় কিন্তু সেই সঠিক বাড়িটি খুঁজে উঠতে পারে না। ঠিক একই ভাবেই সাইটম্যাপও একটি ওয়েবসাইটের জন্য কাজ করে।


সাইটম্যাপের কাজ -

১. সাইটম্যাপ মানেই ওয়েবসাইট র‍্যাঙ্ক করা নয়

সাইটম্যাপ সাবমিট না থাকলে গুগল কি আপনার ওয়েবসাইট খুঁজে পাবে না? এমন প্রশ্ন অনেকেই করে থাকেন। যদি কোনো ওয়েবসাইট সাইটম্যাপ সাবমিট না করে তাহলে গুগল সেই ওয়েবসাইট খুঁজে পাবে ঠিকি কিন্তু সেই ওয়েবসাইটের কোথায় কি আছে সেই সম্পর্কে গুগল রোবটস্ খুঁজে পায় না।


আর এই সমস্যাটি বেশি হয় নতুন ওয়েবসাইট এর ক্ষেত্রে। তবে এই সাইটম্যাপ সার্চ কনসোলে সাবমিট করলে যে কোনো ওয়েবসাইটের সকল পোস্ট বা সেই ওয়েবসাইটটি যে র‍্যাঙ্ক করবে তা কিন্তু না।


এই সাইটম্যাপের জন্য সেই ওয়েবসাইটের সকল পোস্ট, পেজ, ব্লগ ক্যাটাগরি, কমেন্ট, কখন কোন পেজ আপডেট করা হয়েছে এই সমস্ত বিষয়গুলো গুগল সহজে জানতে পারে।


২. সাইটম্যাপ এক প্রকার এক্সএমএল ফাইল

সাইটম্যাপ এক প্রকার এক্সএমএল ফাইল (xml file) । এর কাজ হল ব্লগের নতুন পোস্ট, পুরানো পোস্ট, পেজ, লেভেল, ক্যাটাগরি কোন দিনে কখন পাবলিশ করা হয়েছে, কখন কোনটি আপডেট করা হয়েছে সেগুলো একটি তালিকা আকারে “গুগল”, “Bing” বা “Yahoo” -এর মতন সার্চ ইঞ্জিনকে দেখাতে সাহায্য করে।


ফলে ওয়েবসাইটের সমস্ত পোস্ট বা পেজ সহজে সার্চইঞ্জিনে ইনডেক্স হতে পারে।


৩. ডাটা সংগ্রহ

যেসকল ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ সাবমিট থাকে গুগল তাদের ডাটা সহজেই সংগ্রহ করতে পারে।


৪. ওয়েবসাইটের তথ্য জানতে সাহায্য করে

গুগল বলে যে, সাইটম্যাপ এমন একটি ফাইল যেখানে ওয়েবসাইটের পৃষ্ঠাগুলি, ফাইল এবং অন্যান্য তথ্য গুলো সম্পর্কে জানতে সকল সার্চ ইঞ্জিনকে সাহায্য করে থাকে। গুগলের মতো সার্চ ইঞ্জিন গুলো সেই ওয়েবসাইটকে আরও জানতে সাইটম্যাপের তথ্য গুলো পড়া হয়ে থাকে।


৫. ওয়েবসাইট খুঁজতে সাহায্য করে

১০০ শব্দের মধ্যে ছোট ছোট পোস্ট গুগল সহজেই খুঁজে নিতে পারে। কিন্তু বড় বড় ওয়েবসাইটের পেজ খুঁজতে গুগলের অনেক সময় সমস্যা হয়। সেজন্য ওয়েবসাইটে সাইটম্যাপ যুক্ত করা হয়ে থাকে। যাতে সেই ওয়েবসাইটটির সবকিছু সহজেই গুগল খুঁজে পায়।


আর এতে সেই ওয়েবসাইটটি র‍্যাঙ্ক করতে সাহায্য করতে পারে।


কেন সাইটম্যাপ তৈরি করা জরুরী?

সাইটম্যাপের কাজগুলো সম্পর্কে জানলেই অনেকটা বোঝা যায় কেন সাইটম্যাপ তৈরি করা জরুরী। এটি তৈরি করার অনেক উপকারিতা আছে। যেমন; সাইটম্যাপ তৈরি করলে আপনার ওয়েবসাইটের কনটেন্টগুলো গুগলে তাড়াতাড়ি ইনডেক্স হবে।


আর ওয়েবসাইটের কন্টেন্টগুলো ইনডেক্স হলে যখন কেউ গুগলে কোনো কিছু সার্চ করে আর যদি ওই সার্চ করা কনটেন্ট টি সেই ওয়েবসাইটে থেকে থাকে তাহলে গুগল সেই ওয়েবসাইটটি সেখানে দেখাবে।


আর এর ফলে যিনি এটি সার্চ করলেন তিনি সেই ওয়েবসাইটের কনটেন্টটি দেখার জন্য প্রবেশ করবে। আর এভাবেই সাইটম্যাপ এর মাধ্যামে কোনো ওয়েবসাইটের ভিজিটটরও পাওয়া যায়।


কীভাবে সাইটম্যাপ তৈরি করবেন?

প্রথমত, আপনাকে এক্সএমএল সাইটম্যাপে যেতে হবে। আর সেখানে আপনার ওয়েবসাইটের লিংকটি দিয়ে “Start” অপশনে ক্লিক করতে হবে।


দ্বিতীয়ত, কয়েক সেকেন্ডে আপনার ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ তৈরি হয়ে যাবে। তারপর সেখানে view sitemap details -এ ক্লিক করতে হবে।


তৃতীয়ত, আপনার সাইটম্যাপ তৈরি হয়ে যাওয়ার পর গুগল সার্চ কনসোলে সেটি সাবমিট করতে হবে।


গুগল সার্চ কনসোলে সাইটম্যাপ সাবমিট করার নিয়ম

ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপ তৈরির পর সেটি গুগল সার্চ কনসোলে সাবমিট করতে হবে। এর জন্য আপনি গুগল সার্চ কনসোল টুলস ব্যবহার করতে পারেন। গুগল সার্চ কনসোলে গিয়ে সাইটম্যাপ অপশনে প্রবেশ করতে হবে।


তারপর সেখান থেকে search consol > add property অপশনে ক্লিক করতে হবে। সেখানে প্রবেশের পর আপনার ওয়েবসাইটের লিংকটি অর্থাৎ URL দিতে হবে। এরপর ভেরিফিকেশন অপশনটি চলে আসবে। ভেরিফিকেশনের জন্য একটি ফাইল আপলোড করতে বলা হবে। সেটি আপলোড করে নিতে হবে।


আর এই ভেরিফিকেশন সাইটটি সম্পন্ন হলেই সাকসেস লেখাটি দেখাবে। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটের সাইটম্যাপটি আপলোড সম্পন্ন হয়েছে।


আজ এই পর্যন্তই। আবারও নতুন কোনো বিষয় নিয়ে হাজির হবো আপনাদের কাছে। আর এমন আরও নতুন নতুন তথ্য পেতে চোখ রাখুন ব্যাকস্পেস জার্নালে। সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। ধন্যবাদ।


আরও পড়ুনঃ On-Page SEO: আপনার ওয়েবসাইটকে Ranking করুন দ্রুত!