গুগল অ্যানালিটিক্স কি? এর কাজ এবং সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে জানুন

গুগল অ্যানালিটিক্স একটি ওয়েব বিশ্লেষণ পরিষেবা যা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO) এবং বিপণনের উদ্দেশ্যে পরিসংখ্যান এবং মৌলিক বিশ্লেষণমূলক সরঞ্জাম সরবরাহ করে। পরিষেবাটি গুগল মার্কেটিং প্ল্যাটফর্মের অংশ এবং গুগল অ্যাকাউন্ট আছে এমন যে কারো জন্য বিনামূল্যে পাওয়া যায়।

গুগল অ্যানালিটিক্স কি? এর কাজ এবং সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে জানুন
গুগল অ্যানালিটিক্স কি? এর কাজ এবং সুবিধা ও অসুবিধা সম্পর্কে জানুন

গুগল অ্যানালিটিক্স একটি ওয়েব বিশ্লেষণ পরিষেবা যা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO) এবং বিপণনের উদ্দেশ্যে পরিসংখ্যান এবং মৌলিক বিশ্লেষণমূলক সরঞ্জাম সরবরাহ করে। পরিষেবাটি গুগল মার্কেটিং প্ল্যাটফর্মের অংশ এবং গুগল অ্যাকাউন্ট আছে এমন যে কারো জন্য বিনামূল্যে পাওয়া যায়।


গুগল অ্যানালিটিক্স ওয়েবসাইটের পারফরম্যান্স ট্র্যাক করতে এবং ভিজিটর ইনসাইট সংগ্রহ করতে ব্যবহৃত হয়। এটি সংগঠনগুলিকে ব্যবহারকারীর ট্রাফিকের শীর্ষ উৎস নির্ধারণ করতে, তাদের বিপণন কার্যক্রম এবং প্রচারণার সাফল্যের পরিমাপ করতে। লক্ষ্য সমাপ্তির ট্র্যাক করতে ব্যবহারকারীর ব্যস্ততার ধরণ এবং প্রবণতা আবিষ্কার করতে এবং অন্যান্য দর্শক তথ্য যেমন জনসংখ্যাতাত্ত্বিক তথ্য পেতে সাহায্য করতে পারে।


ছোট এবং মাঝারি আকারের খুচরা ওয়েবসাইটগুলি প্রায়ই বিভিন্ন গ্রাহক আচরণের বিশ্লেষণ প্রাপ্ত এবং বিশ্লেষণ করার জন্য গুগল অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করে, যা বিপণন প্রচারাভিযান উন্নত করতে, ওয়েবসাইট ট্র্যাফিক চালাতে এবং ভিজিটরদের ভালভাবে ধরে রাখতে ব্যবহার করা যেতে পারে।


গুগল অ্যানালিটিক্স কি কাজ করে -

১. বিনামূল্যে

গুগল অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করার প্রথম এবং সবচেয়ে সুস্পষ্ট কারণ হল এটি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে কাজ করে। এর জন্য ক্রয়, সাবস্ক্রাইব, বা ক্রেডিট কার্ড তথ্য প্রদান করার প্রয়োজন নেই।


তবে এর জন্য যা দরকার তা হল একটি জি-মেইল অ্যাকাউন্ট এবং আপনার ওয়েবসাইটে একটি ট্র্যাকিং কোড ইনস্টল করার ক্ষমতা।


২. ডেটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন

এই প্ল্যাটফর্মটি বিভিন্ন আকারে মেট্রিক্স উপস্থাপন করে। তালিকা, চার্ট, গ্রাফ, পাই চার্ট, স্প্রেডশীট এবং আরও অনেক কিছু আপনাকে দেখতে সাহায্য করে যে, আপনার ওয়েবসাইট কিভাবে কাজ করছে।


এখান থেকে পর্যাপ্ত জ্ঞানের সাথে আপনি আপনার ব্যবসার লক্ষ্যের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মেট্রিকগুলি প্রদর্শন করতে ড্যাশবোর্ড তৈরি করতে পারেন।


৩. রিপোর্টিং

যদিও ডেটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন আপনাকে ডেটার বোধগম্যতা দেয় তবুও রিপোর্টিং আপনাকে এটি থেকে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে। ডেটার মধ্যে মেট্রিকের তুলনা করে আপনি আরও অনেক তথ্য সংগ্রহ করতে পারেনব এবং পারস্পরিক সম্পর্কগুলি সনাক্ত করতে পারেন।


প্ল্যাটফর্মের রিপোর্টিং ক্ষমতার সাথে আপনি কোন ডেটা সেট বা ডেটা সেটের সংমিশ্রণ সংগ্রহ, উপস্থাপন এবং তুলনা করতে পারেন। বিষয়বস্তুর প্রাসঙ্গিকতা, ট্রাফিক উৎস, ট্রাফিক ভলিউম, তারিখের পরিসর, প্রচারাভিযান রূপান্তর এবং আরও অনেক কিছু সম্পর্কে রিপোর্ট করা যায়।


ডেটা চালিত সিদ্ধান্ত নিতে এবং অন্যান্য সিদ্ধান্ত নির্মাতাদের সাথে সহায়ক তথ্য শেয়ার করতে গুগল অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করা হয়।


৪. সময়

গুগল অ্যানালিটিক্স আপনাকে আপনার টার্গেট অডিয়েন্স এবং ইন্ডাস্ট্রির জন্য কোন ভালো ব্যবসা ওয়েবসাইট বানায় তা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে অন্তর্দৃষ্টি বা মতামতের মাধ্যমে নয় বরং ডেটার মাধ্যমে।


ডেটা চালিত পদ্ধতির ফলে সময় সাপেক্ষ অনুমান কাজ দূর হয় এবং আপনি আরও দক্ষতার সাথে শিখতে, সিদ্ধান্ত নিতে এবং কার্যকর করতে সক্ষম হয়।


ডেটা এবং বিশ্লেষণের সাহায্যে আপনি গাইড করতে পারেন, আপনি দ্রুত কিন্তু আত্মবিশ্বাসের সাথে কাজ করতে পারেন এবং আপনার ব্যবসা চালানোর জন্য ফোকাস করার জন্য সময় মুক্ত করতে পারেন।


৫. ট্রাফিক

গুগল অ্যানালিটিক্স আপনার ওয়েবসাইটে যারা আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করে তাদের সম্পর্কে আরও অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করে আপনার ব্যবসার উপকার করে। আপনি বয়স, লিঙ্গ এবং অবস্থানের মতো দর্শকদের উপর জনসংখ্যাতাত্ত্বিক তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।


এই তথ্যের সাহায্যে, আপনি চিহ্নিত করতে পারেন যে আপনার টার্গেটেড শ্রোতাদের মধ্যে কোনটা বেশি রূপান্তরিত হতে পারে, এবং তারপর সেই অনুযায়ী আপনার ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু পূরণ করবে।


৬. আগ্রহ

গুগল অ্যানালিটিক্স এমনকি আপনার দর্শকদের স্বার্থের তথ্য সংগ্রহ করে। তারা কি সিনেমা প্রেমী? ভ্রমণ প্রেমীরা? ব্যবসায় পেশাদার? এখানে সুবিধা হল যে আপনাকে সবসময় আপনার টার্গেট অডিয়েন্সের সমস্যার জন্য আবেদন করতে হবে না যা আপনার ব্যবসা সমাধান করে।


আপনি তাদের আগ্রহের বিষয়গুলির সাথে তাদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারেন। এমনকি আপনি আপনার লক্ষ্য শ্রোতাদের মধ্যে একটি কুলুঙ্গি খুঁজে পেতে সক্ষম হতে পারেন যা আপনি পরিবেশন করতে পারেন।


৭. আচরণ

যারা আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিট করে তাদের বৈশিষ্ট্য ছাড়াও, গুগল অ্যানালিটিক্স আপনাকে বলে যে লোকেরা আপনার সাইটে একবার আসার পরে কি করছেন?


আপনি দেখতে পাচ্ছেন যে তারা সাইটে কত সময় ব্যয় করছে, এটি তাদের প্রথমবার ভিজিট করা কিনা, কতবার পুনরাবৃত্ত দর্শকরা ফিরে আসছে, এবং ভিজিটের মধ্যে কতটা সময় কেটে গেছে।


আপনি আপনার সাইটের মাধ্যমে ভিজিটরদের পথ, পথের মধ্যে তাদের আচরণ এবং গ্রাহকদের মধ্যে রূপান্তরিত হওয়ার আগে তারা কী পদক্ষেপ নেন তা অনুসরণ করতে পারেন। এটি গুগল অ্যানালিটিক্সের একটি বড় সুবিধা।


কারণ, এটি আপনাকে ব্যবহারকারীদের ক্রিয়াকলাপগুলি বা আপনি ব্যবহারকারীদের যে পদক্ষেপগুলি নিতে চান তার চারপাশে আপনার প্রচারাভিযানগুলি ডিজাইন করার অনুমতি দেয় এবং তারপরে সেই প্রচারাভিযানের পারফরম্যান্স পরিমাপ করতে পারে।


৮. ওয়েবসাইট চ্যানেল

গুগল অ্যানালিটিক্স এর আরও একটি সুবিধা হল যে, এটি আপনাকে জানতে দেয় যে কোন চ্যানেলগুলি আপনার ওয়েবসাইটে মানুষকে নিয়ে যাচ্ছে। যেমন; সোশ্যাল মিডিয়া, ইমেল বা ল্যান্ডিং পেজ। এটি বিভিন্ন উপায়ে সহায়ক।


উদাহরণস্বরূপ, যদি সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলের মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক আসে, তাহলে আপনি হয়তো আপনার সম্পদগুলিকে সেই এলাকায় ফোকাস করতে চাইতে পারেন। অথবা, আপনি অন্যান্য চ্যানেলে অনুরূপ সামগ্রী, অনুলিপি এবং শৈলী ব্যবহার করার চেষ্টা করতে পারেন যা ভালভাবে সম্পাদন করছে না


আপনি কোন প্রচারাভিযানগুলি সবচেয়ে সফল তা দেখতে পারেন ট্রাফিকের পরিমাণ বা মান তারা আপনার ওয়েবসাইটে নিয়ে আসে কিনা।


৯. ওয়েবসাইটের পৃষ্ঠাগুলি

দর্শক এবং চ্যানেল অনুযায়ী তথ্য সংগ্রহ ছাড়াও, আপনি আপনার ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট পৃষ্ঠা অনুযায়ী এটি দেখতে পারেন। গুগল অ্যানালিটিক্স পেজ ব্রেকডাউন আপনাকে বলতে পারে কোন পেজগুলো প্রায়শই ভিজিট করা হয়, কোন পেজগুলো বেশি পেজে নিয়ে যায়, কোন পেজগুলো কনভার্সনে নিয়ে যায় এবং আরও অনেক তথ্য।


এটি প্রকাশ করে যে কোন তথ্য দর্শকদের জন্য সবচেয়ে প্রাসঙ্গিক। তাই আপনি আপনার অনুসারী, দর্শক এবং গ্রাহকদের ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতাকে অপ্টিমাইজ করতে পারেন এর মাধ্যমে।


আপনার হোমপেজে কী রাখবেন, কীভাবে আপনার সাইটে নেভিগেশন ডিজাইন করবেন, এমনকি আপনার ব্লগ এবং সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টগুলিতে কী ধরনের সামগ্রী রাখবেন তা নির্ধারণ করতে গুগল অ্যানালিটিক্স ব্যবহার করা যায়।


১০. প্রযুক্তি

আজকাল বিভিন্ন ডিভাইসের ব্যবহার, এমনকি শুধুমাত্র একজন ব্যক্তি দ্বারা। এটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ, আপনার ওয়েবসাইট যথাসম্ভব সেটিংসে সঠিকভাবে কাজ করে।


গুগল অ্যানালিটিক্স পারফরম্যান্সের সূচক যেমন পৃষ্ঠা লোড টাইম দেখাতে পারে এবং অপারেটিং সিস্টেম, ব্রাউজার, মনিটর রেজোলিউশন এবং ব্যবহারকারীদের ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারীকে চিহ্নিত করতে পারে।


এই তথ্যটি আপনাকে নিশ্চিত করতে সাহায্য করতে পারে যে আপনার ওয়েবসাইট জনপ্রিয় ব্রাউজার এবং ডিভাইসে ভালভাবে কাজ করে।


এটি আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের রূপান্তরের যাত্রার প্রতিটি ধাপে একটি ইতিবাচক ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা প্রদান করতে সাহায্য করতে পারে এবং যা প্রায়ই একাধিক ডিভাইসের সাথে জড়িত থাকবে।


যদিও গুগল অ্যানালিটিক্স একটি শক্তিশালী হাতিয়ার। এটি লক্ষ্য করা গুরুত্বপূর্ণ যে, এটি দক্ষ হতে স্বল্প সময় নেয় এবং অনুশীলন করে।


গুগল অ্যানালিটিক্সের কিছু সুবিধা

গুগল অ্যানালিটিক্স এ পেশাদাররা সাধারণত প্ল্যাটফর্মকে শক্তিশালী, মুক্ত এবং ব্যবহারকারী বান্ধব বলে মনে করে। গুগল অ্যানালিটিক্স নিম্নলিখিত সুবিধাগুলি প্রদান করে থাকে:

১. পরিষেবাটি বিনামূল্যে, ব্যবহার করা সহজ এবং শিক্ষানবিস বান্ধব।
২. গুগল অ্যানালিটিক্স বিভিন্ন মেট্রিক্স এবং কাস্টমাইজযোগ্য মাত্রা প্রদান করে। এই প্ল্যাটফর্মটি ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের দরকারী অন্তর্দৃষ্টি ধারণ করা যায়।
৩. গুগল অ্যানালিটিক্সে আরও অনেক টুল রয়েছে, যেমন ডেটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন, মনিটরিং, রিপোর্টিং, ভবিষ্যদ্বাণী বিশ্লেষণ ইত্যাদি।


গুগল অ্যানালিটিক্সের ত্রুটি

গুগল অ্যানালিটিক্সের ঐতিহাসিকভাবে কিছু ত্রুটি রয়েছে যা তার ডেটার নির্ভুলতাকে প্রভাবিত করতে পারে। যেমন:


১. সামগ্রিকভাবে ডেটা নির্ভুলতা ব্যবহারকারীরা গুগল অ্যানালিটিক্স কুকি, নির্দিষ্ট ব্রাউজার এক্সটেনশন, বিজ্ঞাপন ফিল্টারিং প্রোগ্রাম এবং গোপনীয়তা নেটওয়ার্কগুলিকে ব্লক করে।


২. সার্ভারের লোড কমাতে ৫০০, ০০০ এলোমেলো সেশনের নমুনা দিয়ে রিপোর্ট তৈরি করা হয়। উপরন্তু, ত্রুটির মার্জিন শুধুমাত্র এই প্রতিবেদনে ভিজিট সংখ্যার জন্য দেওয়া হয়। অতএব, তথ্যের ছোট অংশগুলিতে ত্রুটির খুব বড় মার্জিন থাকতে পারে।


আরও পড়ুনঃ টুইটার: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্যে সবচেয়ে বিশ্বস্ত ও জনপ্রিয়